Header Ads

সমাজের সর্বক্ষেত্রে তাক্বওয়াবান নেতৃত্বের প্রয়োজন। আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী

চিত্রে থাকতে পারে: ১ জন, দাড়ি এবং পাঠ্য
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী বলছেন, আজ আমাদের দেশে শান্তি নেই, মানুষের জীবনের নিরাপত্বা নেই, আইন শৃংখলা পরিস্থিতির স্বাভাবিকতা নেই, ন্যায় বিচার আজ আমাদের জন্য সোনার হরিণে পরিনত হয়েছে, দূর্বলের উপর সবলের আক্রমন নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে, বেহায়া পনা বেলাল্লাপনা দেশের যুব সমাজকে ধ্বংশ করতে বসেছে, আকাশ সংস্কৃতির নামে ভারতীয় চ্যানেলগুলোর বীরুপ প্রভাব আমাদের পারিবারিক জীবনকে বিপর্যস্থ করে তুলছে, মদ জোয়া, হাউজিং সিন্ডিকেট ব্যবসা দেশের অর্থনীতির বারটা বাজাচ্ছে, সরকারী বেসরকারী ব্যাংকগুলো থেকে সরকারের মাত্রাতিরিক্ত লোন গ্রহণ ব্যাংকগুলোকে দেউলিয়া করে দিচ্ছে। এহেন পরিস্থিতিতে দেশের আলেম সমাজকে ঘরে বসে থাকলে হবেনা। দেশের স্বার্থে জনগণের স্বার্থে সমাজের সর্বক্ষেত্রে আলেম সমাজকে ভুমিকা পালন করতে হবে। দেশের চলমান সমস্যার স্থায়ী সমাধান করতে হলে দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইনসাফ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আর ইনসাফ প্রতিষ্ঠা করতে হলে তাকওয়াবান নেতৃত্বের বিকল্প নেই।
আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী আরো বলেন‘‘ ভারতের আসাম প্রদেশে বসবাসকারী মুসলমানরা ভারতের নাগরিক। তারা প্রায় চার শতাব্দী থেকে ভারতের নাগরিক হিসেবে বসবাস করে আসছে। আসামের মুসলমানদেরকে ভারত ছাড়া করতে ভারতের বর্তমান সরকার সম্প্রতি চক্রান্তের জাল বিস্তার করতে শুরু করেছে। ভারত সরকার মায়ানমারের রোহিঙ্গর মুসলমানদের মত আসামের মুসলমানদের নাগরিকত্ব অস্বিকার করার পটভুমি তৈরী করেছে। তারা হিন্দুদেরকে অবাধ নাগরিকত্ব প্রদান করছে। যে সব হিন্দুরা ২০১৪ সালের পূর্বে আসামে আগমন করেছে তাদেরকে নাগরিক হিসাবে স্বীকৃতি দিচ্ছে, অথচ চারশত বছর থেকে যে সব মুলমানরা আসামে বসবাস করে আসছে তাদেরকে বাংলাদেশেী বলে তাদের নাগরিকত্ব হরণ করা হবে তা হতে পারেনা। আসামের মুসলমানদের ভোটারাধিকার হরণ করার ষড়যন্ত্রন চলছে। যদি আসামের মুসলমানদেরকে বাংলাদেশী বলে আসাম থেকে বহিস্কার করা হয় তা হলে তার পরিনতি হবে ভয়াবহ। যা ভারতকে খান খান করেদিতে পারে। বাংলাদেশ সরকারকে এ বিষয়ে এখনই ভারতের সাথে কথা বলতে, আসামের মুসলমাদের ব্যাপারে ভারতের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে যথা সময়ে আন্তর্জাতিক বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষনের উদ্যোগ গ্রহণ করা উচিৎ বলে জমিয়ত মনে করেন। আজ সকাল ১১টায় দারুল উলুম খুলনায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ-এর খুলনা জেলা ও মহানগর শাখার এক যৌথ বৈঠক প্রধান অথিতির বক্তব্যে আল্লামা কাসেমী উপরুক্ত কথাগুলো বলেন। জেলা সভাপতি মাওলানা মুশতাক আহমদ সাহেবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। বিশেষ অতিথি ছিলেন সহসভাপতি মাও. আবদুর রব ইউসুফী, মাও. জুনাইদ আলহাবিব,যগ্মমহাসচিব মাও. নাজমুল হাসান, সাংঠনিক সম্পদক মাও. উবাইদুল্লাহ ফারক ও কেন্দ্রীয় আমেলার সদস্য হাফিজ কবীর আহমদ। বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন খুলনা জেলা সাধারন সম্পাদক মাও. জিহাদুল ইসলাম,মহানগর সভাপতি মাও. নাসির উদ্দিন ও সাধারন সম্পাদক মাও.হুমায়ূন কবিরসহ জেলা ও মহানগর সদস্যবৃন্দ। বৈঠকে বর্তমান কমিটির মেয়াদ আরো তিন মাস বৃদ্দি করা হয়।এর মধ্যে উপজেলা ও থানা কমিটি গঠন করে একটি পূর্ণাংগ কাউন্সিলের মাধ্যমে জেলা ও মহানগর কমিটি পুনর্গঠন করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।
Powered by Blogger.