Header Ads

আজকের মুসলিমশূন্য আরাকান তার বিশাল ও বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে দীর্ঘকাল মোগল শাসনাধীন ছিল

চিত্রে থাকতে পারে: গাছ, আউটডোর, প্রকৃতি এবং জল
হারুন ইজহার- আজকের মুসলিমশূন্য আরাকান তার বিশাল ও বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে দীর্ঘকাল মোগল শাসনাধীন ছিল। খলিফাতুল মুসলেমিন বাদশাহ মাওলানা আলমগীরের মামা নবাব শায়েস্তা খান ছিলেন সুবা বাংলার প্রতাপশালী গভর্নর। তাঁর অধীনে বাংলার বিভিন্ন অংশের যে সকল নায়েবে উজির গন ছিলেন তাদের মধ্যে আমাদের এগারতম পিতা ও পূর্বপুরুষ মুহাম্মদ খান সিদ্দিকী ছিলেন আরাকান ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের নায়েবে উজির। সাতকানিয়া ছিল তখন এঅঞ্চলের রাজধানী। রাজঘাটা ও মলিক সুবহান ছিল মুহাম্মদ খান পরিবারের আবাসভূমি।
কিছু দিন আগে গিয়েছিলাম সাতকানিয়ায় আমাদের পূর্বপুরুষদের শত বছর প্রাচীন সেই আবাসভূমিতে। আমরা গিয়েছিলাম কেবল নাড়ীর টানে নয়, ইতিহাসের স্মৃতিচারণে। যে ইতিহাস আমাদের মনে করিয়ে দেয় বিজয়ের বিস্মৃত পাঠ।আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয় ইলমে দ্বীন আর সিয়াসতে মদনের এক মোহনায় সম্মিলিত হওয়ার দরস।
ছবিতে দেখা যাচ্ছে মুহাম্মদ খান সিদ্দিকী জামে মসজিদ যার গম্বুজ গুলো এখনো উঁচুশিরে দাঁড়িয়ে জানান দিচ্ছে মুসলমানের গর্বের ইতিহাস।
আজ মজলুম আরাকানে বৌদ্ধ-কমিউনিস্ট জঙ্গিদের যে লোমহর্ষক তান্ডব চলছে তা আমাদেরকে আরেকবার আমাদের পূর্বপুরুষদের গৌরবগাঁথা ও ইনসাফের রজত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। যে ইনসাফের রাজত্বকালে কুফরের দম্ভ ছিল নতশির। যে ইনসাফের শাসনামলে অমুসলিমদেরকে তাদের অধিকারের জন্য কোন সংগ্রামে লিপ্ত হতে হয়নি ইসলামী আইনের সুশীতল ছায়াতলে।
এখন থেকে নায়েবে উজির মুহাম্মদ খান সিদ্দিকীদের সম্মানজনক অততীতের কথা মনে করে এবং সম্মুখ ইতিহাস রচনার শপথ নিয়ে আমাদের পরিবারের প্রতিটি নবজাতক শিশুর নামে সিদ্দিকী শব্দটি সংযুক্ত থাকবে ইনশাআল্লাহ।
সৌভাগ্যের ব্যাপার হলো এ যাত্রা শুরু হলো আফিফা সিদ্দিকি বিনতে হারুনকে দিয়ে যার নামের সাথে রয়েছে একবিংশ শতকের শ্রেষ্ঠ সংগ্রামী নারী আফিয়া সিদ্দিকীর চমৎকার সাদৃশ্য। আলহামদুলিল্লাহ!
ইল্লেখ্য যে, মুহাম্মদ খান সিদ্দিকী বংশ পরম্পরাক্রমে খলিফাতুল মুসলেমিন হজরত আবুবকর সিদ্দিক র. পর্যন্ত পৌঁছেন বলে ঐতিহাসিক গবেষণায় জানা যায়।
চট্টগ্রামের খ্যাতিমান দার্শনিক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের সাবেক ডিন অধ্যাপক ড. মুঈন উদ্দিন আহমদ খানের পরিবার মুহাম্মদ খান সিদ্দিকীর বংশের একটি শাখা। তাঁর এ ব্যাপারে রচনা ও পর্যাপ্ত স্টাডি রয়েছে।
আরো উল্লেখ্য যে মুহাম্মদ খান সিদ্দিকী কেবল শাসক ছিলেননা। ছিলেন জবরদস্ত আলেমও। ইতোমধ্য ঢাকা যাদুঘর থেকে তার অসংখ্য রচনাসমগ্র সংগ্রহ করেছেন চট্টগ্রামের প্রথম মেয়র চাচা মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরীর বড় ভাই চাচা আহমদুল ইসলাম চৌধুরী।
মুহাম্মদ খান সিদ্দিকীর পর্যন্ত আমাদের বংশ-সূত্র এরকম ;
কাজী আজিজ আহমদ (দাদা)
মাজহারুন্নবী
মুহাম্মদ আকমল
জা'ফর আলী
মুহাম্মদ হোসেন
মুহাম্মদ তকী
কসীর মুহাম্মদ
নুর মুহাম্মদ
আব্দুর রাজ্জাক
মুহাম্মদ খান সিদ্দিকী
সৈয়দ আব্দুল করীম সিদ্দিকী
সৈয়দ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী
ফেসবুক আত্মপ্রচারের জায়গা নয়। বৈপ্লবিক দাওয়াতের স্বার্থেই সময়ের সন্ধিক্ষণ গুলোর সাথে নিজের ইতিহাস আর সত্ত্বাকে মিলিয়ে নেয়ার প্রয়াসেই এ নিবেদন। আর ইসলামের বীজ যে কুলাঙ্গারা উপড়ে ফেলতে চাই তাদেরকে জানান দেয়া যে এ মাটিতে ইসলামপন্থীদের শিকড় আছে এবং তা শক্ত ও গভীর।
ফাল্লাহু খায়রুন হাফিজাওঁ ওয়া হুয়া আরহামুর রাহিমিন।
Powered by Blogger.