Header Ads

খাদ্যের জন্য রোহিঙ্গাদের হাহাকার

রোহিঙ্গারা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে। পালিয়ে আসা এসব মানুষের জন্য প্রয়োজন খাদ্য, পানীয় এবং চিকিৎসা সুবিধা।
প্রাণ বাঁচাতে সীমান্ত অতিক্রম করে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা খাদ্যের জন্য হাহাকার করছে। অন্যদিকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসার সময় মিয়ানমারের সেনাদের নির্যাতনে ও সীমান্তে তাদের পেতে রাখা স্থলমাইন বিস্ফোরণে আহত রোহিঙ্গারা চিকিৎসা ও ওষুধের অভাবে কাতরাচ্ছেন। চারদিকে কান্নার রোল আর হাহাকার।স্থানীয়দের মতে, রোহিঙ্গারা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে। পালিয়ে আসা এসব মানুষের জন্য প্রয়োজন খাদ্য, পানীয় এবং চিকিৎসা সুবিধা। এখনই এসবের জোগান নিশ্চিত না হলে সংকট হঠাৎ করেই মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে।
পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নারী, শিশু ও বৃদ্ধরা রাত কাটাচ্ছেন আশ্রয় কেন্দ্রের বাইরে খোলা আকাশের নিচে। সেখানেও অনেকের জায়গা না মেলায় তারা শয্যা পেতেছেন সড়কের উপর। অনেকেই আশ্রয়ের খোঁজে পাহাড়-সমতল ও রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন। দীর্ঘ পথ হাটার ক্লান্তি এবং অনাহারে-অর্ধাহারে শিশু এবং বৃদ্ধসহ অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। খোলা আকাশের নিচে এসব রোহিঙ্গার নিত্য সঙ্গী হয়েছে রোদ আর বৃষ্টি। পেটের ক্ষুধা মেটাতে নলকুপের পানিই তাদের একমাত্র ভরসা হয়ে উঠেছে।
ইউএনএইচসিআরের বাংলাদেশ অফিসের মুখপাত্র জোসেফ ত্রিপুরা বলেন, নিবন্ধিত ক্যাম্পে আসা রোহিঙ্গাদেরকে সীমিত আকারে তাবু, খাদ্য ও ওষুধ দেয়া হয়েছে। অনিবন্ধিত ক্যাম্পে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে খাদ্য, ওষুধ ও বিশুদ্ধ পানির সংকট বেশি।
কুতুপালং অনিবন্ধিত ক্যাম্পের স্বেচ্ছাসেবক মোহাম্মদ আনোয়ার জানান, ক্যাম্পে খাদ্য ও পানির সংকট বাড়ছে, দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া না হলে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে।
মিয়ানমারের আরকান রাজ্যে গত ২৫ আগস্টে নতুন করে সেনা অভিযান শুরুর পর থেকে গত ১০ দিনে দেড় লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক ও মানবাধিকার সংগঠনগুলো তাদের প্রতিবেদনে এক লাখ ২৩ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢোকার কথা বললেও বাস্তবে এ সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়িয়েছে বলে স্থানীয় সূত্র দাবি করেছে।
জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর-এর কর্মকর্তা ভিভিয়েন ট্যান বলছেন, গত ২৫ আগস্ট থেকে এক লাখ ২৩ হাজার রোহিঙ্গা মিয়ানমার ছেড়ে বাংলাদেশে এসেছেন। বাংলাদেশে এর আগেও পাঁচ লাখের বেশি রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছিল।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে সীমান্ত এলাকার এক জনপ্রতিনিধি বলেন, ঈদের দিন ঘুমধুম সীমান্তে জাফর-আয়েশা দম্পতি মিয়ানমার সেনাদের গুলিতে নিহত হওয়ার পরই রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ আশঙ্কাজনকহারে বেড়েছে। প্রতিটি সীমান্ত দিয়ে দলে দলে রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকছেন। যেসব সীমান্তে বিজিবির কড়া অবস্থান রয়েছে সেখানের জিরো পয়েন্টে অবস্থান করছে রোহিঙ্গারা। রাতে কিংবা বৃষ্টিতে সুযোগ মতো তারা বাংলাদেশে ঢুকে পড়ছে।
কুতুপালং, বালুখালী ও লেদা রোহিঙ্গা বস্তি নিয়ন্ত্রণকারী মাঝিদের দাবি, তাদের একেক বস্তিতে নতুন করে ৫০ হাজারের অধিক রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। নতুন করে আরো কয়েকটি বস্তি গড়ে তোলা হয়েছে। সব মিলিয়ে নতুন করে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গার সংখ্যা দেড় লাখের বেশি।
কুতুপালং অনিবন্ধিত ক্যাম্পের মাঝি আবু ছিদ্দিক ও মুহাম্মদ নূর জানান, তাদের ক্যাম্পে গত ২৫ আগস্টের পর থেকে এ পর্যন্ত ৫০ হাজারের বেশি নতুন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আশপাশে আশ্রয় নিয়েছে।
বালুখালী ক্যাম্পের মাঝি ইলিয়াছ ও ছৈয়দ নূর জানান, তাদের ক্যাম্প ও আশপাশ এলাকায় নতুন করে ৫০ হাজার রোহিঙ্গা খোলা আকাশের নিচে অবস্থান করছে।
কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন বলেন, গত কয়েকদিন আশঙ্কাজনকহারে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে ঢুকেছে। ঠিক কত সংখ্যক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকেছে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তবে এ সংখ্যা এক লাখের বেশি।
উৎসঃ   নয়াদিগন্ত

Powered by Blogger.