Header Ads

মিয়ানমারে সহিংসতা: মুসলিম হলেই ‘বাঙালি’, হিন্দু হলে ‘ইন্ডিয়ান’

রাখাইন রাজ্যে এমন নীতিতেই চলছে মিয়ানমার সরকার৷ রাষ্ট্রীয়ভাবেই রোহিঙ্গা মুসলিমদের ‘বাঙালি’ বলে অভিহিত করা হয়৷ এমনকি প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে সেদেশে বাস করা হিন্দুদেরও নাগরিক মানতে নারাজ মিয়ানমার৷
২৫ আগস্ট থেকে রাখাইন রাজ্যে শুরু হওয়া সহিংসতায় এরই মধ্যে চার শতাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন বলে দাবি করেছে মিয়ানমারের গণমাধ্যম। তবে বাস্তবে এর সংখ্যা আরো বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে।
বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযান এখনও চলছে৷ এই অভিযানে হত্যা, গণধর্ষণের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগও উঠেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে৷
রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা বাড়তে থাকায় অনানুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ সীমান্তে অবস্থান নিয়েছে রোহিঙ্গারা।
শুক্রবার ভোরে কক্সবাজারের টেকনাফে নাফ নদীতে ভেসে এসেছে ১৬ রোহিঙ্গার মরদেহ৷ মরদেহের অবস্থা দেখে বাংলাদেশের সীমান্ত কর্মকর্তারা ধারণা করছেন, দুই-তিন দিন আগে তাঁদের হত্যা করে মরদেহ পানিতে ফেলে দেয়া হয়েছে৷
এর আগে, বৃহস্পতিবার টেকনাফের শাহ পরীর দ্বীপে উদ্ধার করা হয় ১০ শিশু ও নয় নারীর মরদেহ৷ বুধবার নদী পাড়ি দিতে গিয়ে নৌকাডুবিতে নিহত চার রোহিঙ্গার মরদেহ উদ্ধার করে বাংলাদেশ পুলিশ৷
গত কয়েকদিনে সীমানা অতিক্রম করে পালানোর সময় ওপার থেকে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে৷ কয়েকটি ক্ষেত্রে মর্টার ব্যবহারের কথাও জানিয়েছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম৷
গুলিবিদ্ধ হয়ে অন্তত ৩৩ জন রোহিঙ্গা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন৷ হাসপাতালেই মারা গেছেন গুরুতর আহত দু’জন৷
এদিকে মুসলিম ধর্মাবলম্বী রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে নেই কোনো রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি৷ সংবিধানে তাঁদের কোনো নাগরিকত্বও নেই৷
রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে দু’সপ্তাহ আগেই একটি প্রতিবেদন জমা দেয় কফি আনান কমিশন৷ প্রতিবেদনে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেয়ার পথ উন্মুক্ত করা, অবাধ চলাচল, মতপ্রকাশের সুযোগ দেয়াসহ বেশকিছু সুপারিশ করা হয়৷ তবে সে প্রতিবেদন নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামাচ্ছে না অং সান সু চি-র সরকার৷ বরং জাতিসংঘ একটি স্বাধীন তদন্ত দল পাঠাতে চাইলে, ভিসা দেয়া হয়নি দলের সদস্যদের৷
তবে এবারের সহিংসতায় শুধু রোহিঙ্গা মুসলিমরাই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন, তা নয়৷ রাখাইন রাজ্যের মংডুতে বাস করা কয়েকশ’ হিন্দু পরিবারকেও ছাড়তে হচ্ছে দেশ৷ গত দু’দিনে অন্তত সাড়ে চারশ হিন্দু ধর্মাবলম্বী নারী-পুরুষ-শিশু সীমানা পেরিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন বাংলাদেশে৷ আরো দুই শতাধিক হিন্দু নাগরিক আটকা পড়েছেন নো-ম্যানস’ ল্যান্ডে৷
রোহিঙ্গা সংকটে এ ঘটনা অনেকটাই নতুন৷ হিন্দু শরণার্থীরা বলছেন, ২৫ আগস্ট রাতে যখন রাখাইন রাজ্যে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর ওপর আক্রমণ করে আরাকান রোহিঙ্গা সলিডারিটি আর্মি – এআরএসএ, তখন কিছু কালো কাপড় পড়া কিছু লোক আগ্নেয়াস্ত্র, বোমা ও ছুরি হাতে মংডুর ফকিরাবাজার, রিক্তাপাড়া এবং চিকনছড়ি গ্রামেও হামলা চালায়৷ এখনও কালো কাপড় পরিহিতরা সেই গ্রামগুলিতে অবস্থান নিয়ে আছে৷ তাদের হামলায় অন্তত ৮৬ হিন্দু গ্রামবাসীর মৃত্যু হয়েছে বলেও দাবি করছেন শরণার্থীরা৷
ঠিক কী কারণে, কারা এই হামলা চালাচ্ছে, তা এখনও বুঝে উঠতে পারছেন হিন্দু শরণার্থীরা৷ একদিকে সেনাবাহিনী, অন্যদিকে সশস্ত্র দখলদার, এই সহিংসতা থেকে বাঁচতে দলে দলে বাংলাদেশে আসছেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরাও৷
মিয়ানমার সরকার রাখাইনের হিন্দু ধর্মাবলম্বীদেরও মিয়ানমারের অধিবাসী বলে মনে করে না৷ প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে মিয়ানমারে বসবাস করায় নিজেদের বার্মিজ বলেই দাবি করেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা৷ কিন্তু পরিচয়পত্রে নিবন্ধনের ক্ষেত্রে তাদেরও জাতীয়তা হিসেবে দেখানো হয় ‘ইন্ডিয়ান’৷
এদিকে, মিয়ানমার সরকার জানিয়েছে উত্তর রাখাইনের সহিংসতা কবলিত এলাকা থেকে ১১ হাজার সাতশ’ ‘আদিবাসীকে’ সরিয়ে নেয়া হয়েছে৷ উত্তর রাখাইনে ‘আদিবাসী’ বলতে অমুসলিম বার্মিজদের বুঝিয়ে থাকে মিয়ানমার সরকার৷
বৃথা বৈঠকে জাতিসংঘ
যুক্তরাজ্যের আহ্বানে বুধবার রোহিঙ্গা ইস্যুতে বৈঠকে বসে জাতিসংঘের ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদ৷ দীর্ঘ কয়েক ঘণ্টার রুদ্ধদ্বার বৈঠক কার্যত শেষ হয়েছে কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই৷ চলমান সহিংসতার নিন্দা জানালেও চীনের বাধায় আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি দেয়নি নিরাপত্তা পরিষদ৷
কূটনীতিকরা বলছেন, রোহিঙ্গা সংকটে জাতিসংঘের আরো শক্ত ভূমিকা রাখার পথে বাধা চীন৷ মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংকট হিসেবে দেখে, সেখানে এখনই জাতিসংঘের হস্তক্ষপের প্রস্তাবে এর আগেও ভেটো দিয়েছিল চীন৷
বৈঠক শেষে জাতিসংঘে ব্রিটিশ দূত ম্যাথিউ রাইক্রফট সাংবাদিকদের জানান, ‘‘অধিকাংশ সদস্য রাষ্ট্রই সংকট নিরসনে অং সান সু চি-র ওপরই ভরসা রাখতে চায়৷ এখন পর্যন্ত গণতন্ত্রের পথে তাঁর উন্নতি আশাব্যঞ্জক৷”
তবে সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বার্ষিক বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকট বেশ জোরেসোরেই আলোচনায় উঠবে বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকরা৷ চীনের অনানুষ্ঠানিক সমর্থন সত্ত্বেও বড় ধরনের চাপের মুখেই পড়তে হতে পারে মিয়ানমারকে৷
শীর্ষনিউজ
Powered by Blogger.