Header Ads

রোহিঙ্গা মুসলিমদের নাগরিকত্ব প্রদানের আহ্বান জাতিসঙ্ঘ মহাসচিবের

মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের মুসলিম জনগোষ্ঠীকে নাগরিকত্ব প্রদান অথবা বৈধতা দিতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিয়ো গুতেরাস। চলমান অস্থিরতা উগ্রবাদকে উসকে দেবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মহাসচিব। গত মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কে জাতিসঙ্ঘ সদর দফতরে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিয়ো গুতেরাস। 
গুতেরাস সাংবাদিকদের তার উদ্বেগের কথা জানিয়ে বলেন, আগস্টের শেষ সপ্তাহ থেকে এ পর্যন্ত এক লাখ ২৫ হাজার রোহিঙ্গা দেশান্তর হয়েছেন, যা এতদাঞ্চলে অস্থিতিশীলতার ঝুঁকি বাড়াচ্ছে। রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির সাম্প্রতিক হামলার নিন্দা জানিয়ে জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব বলেন, সম্প্রতি রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি হামলা চালালেও মিয়ানমারের নিরাপত্তাবাহিনীর সহিংসতার প্রতিবেদন ধারাবাহিকভাবে পাওয়া যাচ্ছে। আর এসব হামলা অসহিষ্ণু ও বাছবিচারহীন। এ ধরনের হামলা উগ্রপন্থাকেই কেবল বাড়িয়ে তুলবে।
গুতেরাস আরো জানান, মিয়ানমারে সহিংসতা বন্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিতে তিনি শিগগিরই জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদে আনুষ্ঠানিক লিখিত আকারে তার উদ্বেগের কথা জানাবেন। উত্তেজনা প্রশমন ও সঙ্কটের সর্বাত্মক সমাধানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব। এ ছাড়া জীবন রক্ষাকারী সহযোগিতা যাতে সহজে পৌঁছাতে পারে সে জন্য মিয়ানমার সরকারকে নিরাপত্তা দেয়ার আহ্বান জানান তিনি। দেরি না করে সঙ্কটের গভীরে যাওয়ার জন্য কার্যকর উদ্যোগ নেয়ারও আহ্বান জানান তিনি।
জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব আরো বলেন, এটা খুব জরুরি যে হয় রাখাইন প্রদেশের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নাগরিকত্ব প্রদান অথবা এখনই বৈধ অধিকার দিতে হবে যাতে করে তারা সাধারণ জীবনযাপন, স্বাধীনভাবে চলাফেরা, শ্রমবাজারে প্রবেশ এবং শিক্ষা ও চিকিৎসাসেবা পেতে পারেন।
রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে প্রবেশ করতে দেয়ায় কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মহাসচিব জানান, বাংলাদেশের পাশে আছেন তিনি।
এ দিকে জাতিসঙ্ঘের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন আগামী তিন মাসের জন্য বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সহযোগিতায় জাতিসঙ্ঘের কাছে ১৮ মিলিয়ন ইউএস ডলারের বরাদ্দ চেয়েছে বলে সদর দফতর সূত্রে জানা গেছে।
আগামী সপ্তাহে নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা ইস্যুটি গুরুত্বের সাথে আলোচিত হবে বলে জাতিসঙ্ঘের সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।
Powered by Blogger.