Header Ads

স্বামীর লাশ না পেয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছেন হাসিনা

মিয়ানমারের সেনা অভিযানে নিহত হওয়া স্বামীর লাশের খবর না পেয়ে সীমান্তের কাঁটা তার পেরিয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছেন হাসিনা। তার স্বামী ফজর আহমদকে মিয়ানমারের সেনা বাহিনীরা মেরে ফেলেছে এমনটাই শুনেছেন তিনি কিন্তু এখনো কবরটুকুও দেখেনি। এরই মধ্যে নতুন করে আবারও সেনা অভিযান শুরু হওয়ায় স্বামীর লাশের খবর না নিয়ে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে হাসিনা বিবির পরিবারের ১০ জন সদস্য। শুধু হাসিনা বিবির স্বামী নই, তার সাথে আরো ৩/৪ জন মারা গেছে বলে শুনেছেন তিনি।
হাসিনা বিবি কান্না করতে করতে বলেন, ‘মিয়ানমারের সেনারা তার স্বামীসহ আরো ৩/৪ জনকে গুলি করে হত্যা করছে বলে শুনেছেন। কিন্তু এখনো তাদের লাশ খুজেঁ পায়নি। শুধু লাশ নই, এখনো লাশের খবরও খুঁজে পায়নি বলে কান্না করতে থাকেন।’তিনি বলেন, ‘মিয়ানারের সেনারা যখন নতুন করে আবারও হত্যাযজ্ঞ শুরু করেছে, তাই নিজের স্বামীর লাশের কবরের না দেখে বাংলাদেশে ফিরে যাচ্ছি। এখন আমাদের একমাত্র ভরসা বাংলাদেশ। যদি কোনদিন বার্মার হত্যা থামে তাহলে আমরা নিজেদের দেশে ফিরে যাবো।’
কয়েক দশক ধরে মিয়ানমারে চলমান জাতিগত নিপীড়নের মুখে পালিয়ে এসে পাঁচ লাখের বেশি মানুষ বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। বাংলাদেশ তাদের ফিরিয়ে নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে এলেও মিয়ানমার তাতে সাড়া দেয়নি। বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়াদের নাগরিক হিসেবেও মেনে নিতে নারাজ মিয়ানমার।
গত ২৪ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে পুলিশ পোস্ট ও সেনা ক্যাম্পে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার পর থেকে সীমান্তে নতুন করে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ শুরু হয়। সীমান্তে নতুন অনুপ্রবেশ করে রোহিঙ্গাদের ঢল নামে। এরপর প্রায় প্রতিদিনই সীমান্ত সংলগ্ন রাখাইন রাজ্যে গুলি, বিস্ফোরণের শব্দ ও ধোঁয়া দেখা যেতে থাকে।
জাতিসংঘের হিসাবে, বুধবার পর্যন্ত এই দফায় প্রায় এক লাখ ৪৬ হাজার মানুষ মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে। কিন্তু স্থানীদেয় বাসিন্দারের দাবি এ হিসেবের দুইগুণ বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এই ঘটনার পর থেকে বাংলাদেশ মোট চার বার মিয়ানমারের দূতকে ডেকে প্রতিবাদ জানিয়েছে।
Powered by Blogger.