Header Ads

প্রসঙ্গ রোহিঙ্গা ইস্যু -বিশ্ব রাজনীতির চেহারা বনাম মুসলিম চরিত্র, মুসা আল হাফিজ



এক
দেখলেন তো, ইভানজিলিক্যাল খ্রিস্টান, প্রোটেস্টান্ট খ্রিস্টান, ক্যাথলিক খ্রিস্টান, অর্থোডক্স খ্রিস্টান নিজেদের বিবাদ ভুলে যায় মুসলিম প্রশ্নে।হয়ে যায় এক দেহ, এক মন।
দেখলেন তো, রাশিয়া আমেরিকার দ্বন্দ্ব মিটে যায়, ইউরোপীয় ইউনিয়ন - ব্রিটেনের দূরত্ব ঘুচে যায়, মার্কেল- ট্রাম্প এক প্লেটে বসে যায়,উদারনৈতিক ও উগ্রবাদী এক পথের পথিক হয়ে যায় মুসলিমপ্রশ্নে!

দেখলেন তো, হিন্দুত্ববাদী মোদিগণ, বৌদ্ধবাদী সুচীগণ, খ্রিস্টবাদী ট্রাম্প - পুতিনগণ, ইহুদিবাদী নেতানিয়াহুগণ যার যার ধর্ম ও সংস্কৃতির ভিন্নতা সত্ত্বেও একই সুরে কথা বলে মুসলিমপ্রশ্নে! সকলেই একমত, মুসলিম হত্যা হত্যা নয়। মুসলিম রক্ত সকলকেই দেয় বিনোদনের স্বাদ। তারা চালিয়ে যায় এবং চালিয়ে যেতে পারে।

পারে না শুধু মুসলিমরা।মরে যাবে, ভষ্ম হয়ে যাবে, গণনিধনে নিঃশেষ হয়ে যাবে, তবুও তারা কেউ কাউকে মেনে নেবে না, মেনে নেবে না, মেনে নেবে না।
এক হবে না, এক হবে না, এক হবে না।

দুই।
কাঁদো, হতভাগা এরদোয়ান, তুমি যদি কিছু করতে চাও, গার্ডিয়ান, ওয়াশিংটন পোস্ট,সিএনএন লিখবে,তুমি মতলবি, তোমার খায়েশ জেগেছে মুসলিমদের সুলতান হবার।তারা এটা লিখবে আরবদের ভীত করার জন্য, আরব শাসকদের মধ্যে ক্ষমতা ও প্রভাব হারানোর আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য, মুসলিম কল্যাণের বৈশ্বিক ভূমিকাকে সাম্রাজ্য বিস্তারের খায়েশ বলে প্রতিপন্ন করার জন্য এবং মুসলিমদের বিভক্তিকে ভয়ানক রূপ দেয়ার জন্য।

তারা যা প্রচার করবে, মুসলিমরা তুলবে একই তারস্বর!
ফলত মুসলিমদের সুদিন ফেরাতে যেই কাজ করবে, তার ব্যাপারে মুসলিম- অমুসলিমের সুর একই নাদে উচ্চারিত হবে। হয়ে যাবে দারুণ এক ঐক্য- মুসলিম- অমুসলিমে।এ দুঃসময়ে যদি মুসলিম জাহানে থাকতেন সুলতান মুহাম্মদ ফাতেহ বা সুলতান সুলাইমান, তাদেরও একই পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হতো।
Powered by Blogger.