Header Ads

মালয়েশিয়ায় হাজারো মানুষের বিক্ষোভে কান্নার রোল

মিয়ানমারের রাখাইনে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলমানদের নির্যাতনের প্রতিবাদে বুধবার লয়েশিয়ায় হাজারো মানুষ বিক্ষোভ করেছে।

বিক্ষোভে বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাও অংশ নেয়। রাখাইনে পরিবারের সদস্যদের মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী মেরে ফেলছে দাবি করে তাদের অনেককে কাঁদতে দেখা যায়।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, রাখাইনে রোহিঙ্গা নির্যাতনের ঘটনা মুসলিম প্রধান মালয়েশিয়ায় প্রায় সময়েই ক্ষোভের জন্ম নেয়।

বুধবার প্রায় এক হাজার বিক্ষোভকারী কুয়ালালামপুরের একটি প্রধান সড়কের কাছে সমবেত হয়ে রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধের দাবি জানান।

এ বিক্ষোভকারীদের অনেকেই রোহিঙ্গা শরণার্থী বলে মনে করা হচ্ছে। বিক্ষোভকারীদের অনেকেই কাঁদতে কাঁদতে বলেন, তাদের পরিবারের সদস্যদের মেরে ফেলা হয়েছে।

এ সময় বিক্ষোভকারীদের কাউকে কাউকে 'রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধ কর' এবং 'রোহিঙ্গাদের হেফাজত করো' শীর্ষক ব্যানার প্রদর্শন করতে দেখা যায়।

এই বিক্ষোভ কর্মসূচি শান্তিপূর্ণ থাকলেও মালয়েশীয় পুলিশ অভিবাসন সংক্রান্ত অপরাধের অভিযোগে প্রায় ২০ জনকে গ্রেফতার করেছে।

এদিকে তুলনামূলক আরেকটু ছোট একটি জমায়েত নিয়ে একদল বিক্ষোভকারী মিয়ানমারের দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

এ বিক্ষোভে নেতৃত্ব দেন মোহাম্মদ আজমি আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা বন্ধ করতে মিয়ানমারের প্রতি দাবি জানাচ্ছি।

গত ২৫ আগস্ট ভোররাত থেকে রাখাইনে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে রোহিঙ্গা অধিকার রক্ষা বিষয়ক সশস্ত্র স্বাধীনতাকামী সংগঠন আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) সদস্যদের সংঘর্ষ হয়।

এ সংঘর্ষকে ঘিরে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী রাখাইন জুড়ে অভিযান শুরু করলে গত ছয় দিনে প্রায় ১১০ জন নিহত হয়। এছাড়া প্রাণ বাঁচাতে অন্তত সাড়ে ১৮ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় বলে আন্তর্জাতিক অভিবাসন পর্যবেক্ষণ সংস্থা।
Powered by Blogger.