Header Ads

কবে ফিরছেন খালেদা?


প্রায় দেড় মাস ধরে দেশের বাইরে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যাওয়ার পর থেকেই তার ফেরার তারিখ নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। সুনির্দিষ্ট তারিখ এখনও বলতে পারছেন না বিএনপি নেতারা।
তাহলে কবে ফিরছেন বিএনপি নেত্রী? সুনির্দিষ্ট তারিখ এখনও হয়নি। তবে দলের নেতারা বলছেন, ঈদের সপ্তাহ দুয়েক পর সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময় দেশে আসতে পারেন খালেদা জিয়া।
অন্যদিকে জিয়া অরফানেজ ও চ্যারিটাবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় উচ্চ আদালতে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরাও জানিয়েছেন সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি বিএনপি নেত্রী দেশে ফিরতে পারেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খানও এমনটা জানিয়েছেন।
ঢাকাটাইমসকে শায়রুল বলেন, ‘১৫ সেপ্টেম্বর ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) দেশে ফিরতে পারেন। তবে সবকিছু চিকিৎসকদের নির্দেশনার ওপর নির্ভর করবে। যদিও এখনো এই তারিখ চূড়ান্ত হয়েছে কি না জানা নেই।’

যুক্তরাজ্য যাওয়ার পর থেকেই খালেদা জিয়া কবে নাগাদ দেশে ফিরবেন এ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে যাওয়ার পর থেকেই নানা আলোচনা চলছে। আর হয়তো নাও ফিরতে পারেন এমন কথাও দাবি করছেন আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতা। যদিও বিএনপি নেতারা শুরু থেকেই বলছেন, চিকিৎসা শেষ হলেই দেশে ফিরবেন দলীয় প্রধান। তবে নির্দিষ্ট করে কেউ বলতে পারেননি কবে নাগাদ তিনি আসবেন।
গত ১৫ জুলাই চোখ ও পায়ের চিকিৎসার জন্য লন্ডন যান বিএনপি নেত্রী। পরদিন বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে বেগম খালেদা জিয়া লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দরে অবতরণ করেন। লন্ডন পৌঁছার পর থেকে বড় ছেলে ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বাসায় অবস্থান করছেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।
খালেদা জিয়া যুক্তরাজ্য যাওয়ার পর এখন পর্যন্ত এক দিনই তাকে প্রকাশ্যে দেখা গেছে। আগস্টের শুরুর দিকে লন্ডনে একটি সুপার শপে ছেলে তারেক রহমান এবং পুত্রবধূ জোবায়দা রহমানকে নিয়ে পণ্য যাচাই করতে দেখা গেছে।
৯ আগস্ট লন্ডনের মনফিল্ড হাসপাতালে বিএনপি নেত্রীর চোখে অস্ত্রোপচারের কথা জানায় বিএনপি।সেই অস্ত্রোপচার সফল হয়েছে বলেও জানিয়েছে দলটি। কিন্তু এটা তার চিকিৎসার একটি অংশ বলে জানিয়েছেন নেতারা। তারা জানান, ১০ সেপ্টেম্বর বিএনপি চেয়ারপারসনের চোখ ও হাঁটুর চূড়ান্ত পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ আছে। দেশে ফেরার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে সেদিন চিকিৎসকদের পরামর্শের পর।

যুক্তরাজ্য সফরে গিয়ে এখনও কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে যোগ দেননি বিএনপি নেত্রী। তবে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর যুক্তরাজ্য বিএনপির উদ্যোগে একটি আলোচনা সভায় তিনি উপস্থিত থাকতে পারেন বলে জানিয়েছেন নেতারা।
ঈদের দিন খালেদা জিয়া তার ছেলে তারেক রহমান ও স্বজনদের সঙ্গেই কাটাবেন। ২০০৮ সালে তারেক রহমান চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যাওয়ার পর এ নিয়ে দুইটি ঈদ তিনি ছেলের সঙ্গে কাটাচ্ছেন। এর আগে ২০১৫ সালে ঈদুল আযহাও লন্ডনে পরিবারের সঙ্গে উদযাপন করেন খালেদা জিয়া। তখন চিকিৎসার জন্য লন্ডন ছিলেন তিনি।
খালেদার দেশে ফেরা বিএনপির জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দলটি যে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবি তুলছে, তার রূপরেখা চূড়ান্ত হতে পারে তার দেশে ফেরার পরই। বিএনপি নেতারা জানান, লন্ডনে তারেক রহমানের সঙ্গেও এ নিয়ে শলাপরামর্শ করে ফিরবেন তাদের চেয়ারপারসন।
 (ঢাকাটাইম
Powered by Blogger.