Header Ads

খায়রুল হকের ও বিচার হতে হবে: ব্যারিস্টার সরোয়ার হোসেন

সাবেক প্রধান বিচারপতি খায়রুল হক নিজের রায় মানছেন না। তিনি আদালতের রায় এবং সংবিধান ভঙ্গ করে আইন কমিশনের মতো রাষ্ট্রের লাভজনক পদে বসে আছেন। এ কারণে তাকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে হবে। টিভিএনএ’কে দেয়া সাক্ষাতকারে হাইকোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সরোয়ার হোসেন এ দাবি জানান।
তিনি বলেন, খায়রুল হক যখন বিচারপতি ছিলেন তখন একটি মামলার রায়ে তিনি বলেছেন, অবসর গ্রহণের পর কোন বিচারপতি প্রজাতন্ত্রের লাভজনক পদ গ্রহণ করতে পারেন না। কিন্তু এখন তিনি নিজেই আইন কমিশনের চেয়ারম্যান পদের মতো লাভজনক পদে বসে আছেন। আর ঐ চেয়ারে বসে তিনি বর্তমান প্রধান বিচারপতি এবং আপিল বিভাগের দেয়া রায় নিয়ে অযাচিত মন্তব্য করে যাচ্ছেন। তাছাড়া সংবিধানের ৯৯ অনুচ্ছেদেও এটি স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে। সুতরা তিনি সংবিধানের ৯৯ নাম্বার অনুচ্ছেদও ভঙ্গ করছেন। তিনি যেভাবে সহকর্মীদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন তাতে প্রমাণ হয় খায়রুল হক একটি বিশেষ মহল থেকে নির্দেশনা পেয়েছেন এবং সেই নির্দেশনা অনুযায়ী তিনি এই কাজ করেছেন। আইন কমিশনের ৬ নাম্বার ধারায় তাকে যেই কর্মধারা দেওয়া হয়েছে অর্থাৎ পুরাতন আইন সংস্কার করা, জাতীয় স্বার্থে ও দেশের স্বার্থে নতুন আইনকে উপস্থাপন করার কথা বলা হয়েছে। তার ভিতরে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের সমালোচনা করার কোন ধারা সেখানে নেই।ব্যারিস্টার সরোয়ার হোসেন বলেন, ত্রয়োদশ সংশোধনী বাতিল রায়ের ১৬ মাস পর খায়রুল হক লিখিত রায়ে স্বাক্ষর করেছেন। এতে তিনি বিচার বিভাগের প্রথা ভঙ্গ করেছেন। বিচারপতি মাঈনুল হক চৌধুরীর মতে, ১৬ মাস পর ঘোষিত এবং লিখিত রায় পরিবর্তন করে তিনি ক্রিমিনাল অফেন্স করেছেন। অতএব তাকে সংবিধানের ৯৯ নাম্বার অনুচ্ছেদ ভঙ্গ করার জন্য ৭(১) নাম্বার অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তার বিচার করা যায়। সংবিধানের ৭(১) নাম্বার অনুচ্ছেদে আছে, যদি কেউ এই সংবিধান ভঙ্গ অথবা পরিবর্তন করে অথবা এমন কোন কাজ করে যাতে মানুষের কাছে প্রতিয়মান হয় এই সংবিধানের বিধিবিধান ভঙ্গ করার পাঁয়তারা অথবা তার বিশ্বাস ভঙ্গ করে তাহলে ৭(১) অনুযায়ী গুরুতর অপরাধ এবং এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ৭ জন বিচারপতির রায় কে পূর্ব পরিকল্পিত বলে খায়রুল হক প্রমাণ করেছেন ত্রয়োদশ সংশোধনী বাতিল রায়টি পূর্ব পরিকল্পিত ছিল। কারণ সে রায়টি ছিল ৩/৪। সে রায়ের মাধ্যমেই জাজেজ রিপাবলিক অব বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তার ঐ রায়ের কারণে আজকে যেই রাজনৈতিক অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে, যেই মানুষগুলো নিহত হয়েছে, যেই মানুষগুলো গুম হয়েছে। এর দায় খায়রুল হককে নিতে হবে। তিনি গণতন্ত্রকে হত্যার জন্য দায়ী। এসব কারণে তাকে বিচারের মুখোমুখি করা উচিত। ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রায় গণতন্ত্র এবং সুশাসনের জন্য ঐতিহাসিক রায় হিসেবে বিবেচিত থাকবে। রায়ের পর্যবেক্ষণে যে কথাগুলো বলা হয়েছে সেগুলো বাংলাদেশের বাস্তবতার প্রতিচ্ছবি।
Powered by Blogger.